লিউকোমিয়ার ওষুধের অনুমোদন দিল এফডিএ

লিউকোমিয়ার প্রথম ওষুধ ইডিফা (এনাসিডেনিব) বাজারে এনেছে সেলজিন ফার্মা। এটি মূলত আইডিএইচ-২ নামের প্রোটিন ইনহিবিটর। ইডিফা মূলত এএমএল (acute myeloid leukemia) রোগীদের জন্য বেশি কার্যকর। এই এএমএল রোগী মানে হল সেইসব রোগী যাদের অন্য ট্রিটমেন্টে (যেমন বোন ম্যারো ট্রান্সপ্লান্ট) কাজ হয় না কিংবা কাজ হলেও কিছুদিন পরে আবার ক্যান্সার ফিরে আসে। খুবই সাধারন একটা থিওরীর উপরে এই ওষুধ কাজ করে। ক্যান্সারে আক্রান্ত কোষের খাদ্য সুনিদির্ষ্টভাবে নিয়ন্ত্রণ করে দেওয়া। সাধারন কোষ আর ক্যান্সার কোষের মেটাবোলিজম ভিন্ন, তাই খুবই সুনিদির্ষ্টভাবে ক্যান্সার সেলের খাদ্য সরবরাহ বন্ধ করা অনেক কঠিন। ক্যান্সার সেল খুব দ্রুত গ্লাকোলাইসিস আর ল্যাকটিক এসিড ফার্মেন্টেশন করে শক্তি উৎপাদন করে সাইটোসলে। যেখানে সাধারন কোষ গ্লাইকোলাইসিস আর পাইরুভেটকে অক্সিডেশন করে মাইটিকন্ডিয়াতে মন্হর গতিতে শক্তি উৎপাদন করে। সাধারন কোষের জন্ম হবার পরে, বয়সে বড় হয়, অন্য কোষের জন্ম দিয়ে সবশেষে মারা যায়। আর ক্যান্সার কোষের জন্ম হওয়ার পরে আর কোন রূপান্তর ঘটে না, শিশুকালেই আটকে থাকে এবং খুব দ্রুত বংশবৃদ্ধি করে ছড়িয়ে যেতে থাকে। এই ইডিফার কাজ হল ক্যান্সার কোষের খাদ্যকে নিয়ন্ত্রণকরে শিশুকোষগুলোকে শিশুকাল থেকে ঠেলে পুরো জীবনক্রিয়ার দিকে এগিয়ে দিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করা।

(লিখেছেন কেমিক্যাল আলী)