সার্ক চলচ্চিত্র উৎসবে শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্য অজ্ঞাতনামা

শ্রীলংকার রাজধানী কলম্বোতে ২১ থেকে ২৫ নভেম্বর অনুষ্ঠিত সার্ক চলচ্চিত্র উৎসব ২০১৭ তে শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্য পুরষ্কার “অজ্ঞাতনামা” চলচ্চিত্রের জন্য অর্জন করেছে তৌকির আহমেদ। সার্কভুক্ত ৮ দেশের ১৬ টি সিনেমা প্রতিযোগীতা বিভাগে প্রতিযোগীতা করেছিলো। প্রতিযোগীতায় জুরী বোর্ডের বিচারে শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্য পুরষ্কার অর্জন করেন তৌকির আহমেদ। সার্ক চলচ্চিত্র উৎসব ২০১৭ তে বাংলাদেশ থেকে উৎসবে প্রতিযোগিতা বিভাগে প্রদর্শিত হয়েছিলো তৌকির আহমেদ পরিচালিত “অজ্ঞাতনামা” ও জাকির হোসেন রাজু পরিচালিত “প্রেমি ও প্রেমি” চলচ্চিত্র। উৎসবে চলচ্চিত্র দুটির পরিচালকগন সার্কের আমন্ত্রণে উৎসবে যোগদান করেছিলেন। ২৫ নভেম্বর সার্ক চলচ্চিত্র উৎসবের সমাপনী দিনে শ্রীলংকা সময় সন্ধ্যা ৬:৩০ এ পুরষ্কার ঘোষনা করা হয়। সমাপনী অনুষ্ঠানের অতিথি, জুরী বোর্ডর সদস্যবৃন্দ, সার্ক সদস্য রাষ্ট্রে কূটনৈতিকবৃন্দ, সার্কের পরিচালকবৃন্দ ও সদস্য রাষ্ট্রের চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট বিশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গের উপস্থিতিতে তৌকির আহমেদ এর হাতে পুরষ্কার তুলে দেন সার্কের মহাসচিব ও উৎসব কতৃপক্ষ। পুরষ্কার এর বিষয়ে সার্ক চলচ্চিত্র উৎসব থেকে বাংলাদেশে সার্ক চলচ্চিত্র উৎসব ২০১৭ এর যোগাযোগ সমন্নয়ক (বাংলাদেশ) মনজুরুল ইসলাম মেঘ কে নিশ্চিত করেছেন সার্ক চলচ্চিত্র উৎসব ও সার্ক কালচারাল সেন্টার শ্রীলংকা এর উদ্ধর্তন কর্মকর্তা মাহিনদা সুমানাসেকারা।

উল্লেখ্য, প্রতিযোগীতা ছাড়াও বাংলাদেশ থেকে মাষ্টার বিভাগে প্রদর্শিত হয়েছে মোরশেদুল ইসলাম পরিচালিত “অনিলবাগচির এক দিন”। প্রতিযোগীতার ২ টি সিনেমার যাবতীয় তথ্য ও সার্বিক তত্বাবধান করে সিনেমা ২ টির পরিচালকদের এবং সার্ক কালচারাল সেন্টারকে (শ্রীলংকা) বাংলাদেশ থেকে যাবতীয় সহযোগীতা করেছেন মনজুরুল ইসলাম মেঘ। সার্ক কালচারাল সেন্টারের উদ্ধর্তন কর্মকর্তা মাহিনদা সুমানাসেকারা সার্ক ভূক্ত দেশের এই উৎসবের সম্বনয়ক হিসাবে তত্বাবধান করেছেন। মনজুরুল ইসলাম মেঘ “অজ্ঞাতনামা”র সফলতার আনন্দের পাশাপাশি একটু আক্ষেপ এর সাথে জানান বাংলাদেশ থেকে প্রাথমিক ভাবে ৪ টি স্বল্পদৈর্ঘ চলচ্চিত্র মনোনিত হয়েছিলো। কিন্তু স্বল্পদৈর্ঘ চলচ্চিত্রের পরিচালকবৃন্দ যথাযথ যোগাযোগ না করায় উৎসব থেকে সিনেমাগুলো বাদ পড়েছে। ৪ টি স্বল্পদৈর্ঘ চলচ্চিত্র পরিচালকদের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তাদের আমরা খুজে পাইনি। এমন কি ফেসবুকে পোষ্ট দিয়ে তাদের আইডিতে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তারা যোগাযোগ করেননি। মনজুরুল ইসলাম মেঘ দুঃখের সাথে আরো বলেন সার্ক চলচ্চিত্র উৎসবের মতন একটি উৎসবে তারা সুযোগ হাত ছাড়া করলেন এটি আমাদের চলচ্চিত্র অঙ্গনের জন্য সত্যি অত্যন্ত কষ্টের। তবে বাদপড়া সিনেমা নিয়ে বেশ কিছু মিডিয়া সংবাদ করেছিলো সার্ক চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হচ্ছে। আসলে উৎসবের সময় সূচীতে বাংলাদেশ থেকে “অজ্ঞাতনামা’, “প্রেমি ও প্রেমি” এবং “অনিল বাগচির একদিন” সিনেমাই কেবল সার্ক চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হয়েছে। আগামিতে বাংলাদেশ থেকে আমরা সারা বিশ্বে বাংলাদেশের সিনেমা বিভিন্ন চলচ্চিত্র উৎসব এবং বানিজ্যিক ভাবে মুক্তি দিতে চাই। তিনি আরো বলেন, আমরা তৌকির আহমেদ পরিচালিত “হালদা” চলচ্চিত্র প্রোমশন নিয়ে কাজ করছি । হালদা সারা দেশের ৮০ টি হলে মুক্তি পাবে ১ ডিসেম্বর এবং বিশ্বের আরো ১৬ টি দেশে মুক্তিপাবে ৮ ডিসেম্বর। আমরা আশা করছি বাংলাদেশের চলচ্চিত্র একদিন বিশ্ব জয় করবে সে দিন আর দূরে নাই। সার্ক চলচ্চিত্র উৎসবে তৌকির আহমেদ এর “অজ্ঞাতনামা” পুরষ্কার অর্জন করেছে এটি আমাদের গর্বের ও চলচ্চিত্র অঙ্গনের জন্য আনন্দের।